সাগরবাণীপেকুয়ায় পিঠিয়ে বড় ভাই ও ভাবীকে রক্তাক্ত জখম করল ছোট ভাইয়েরা - সাগরবাণী পেকুয়ায় পিঠিয়ে বড় ভাই ও ভাবীকে রক্তাক্ত জখম করল ছোট ভাইয়েরা - সাগরবাণী

পেকুয়ায় পিঠিয়ে বড় ভাই ও ভাবীকে রক্তাক্ত জখম করল ছোট ভাইয়েরা

প্রকাশ: ২০২০-০৬-০৯ ১৩:০৯:৫৯ || আপডেট: ২০২০-০৬-০৯ ১৩:০৯:৫৯

বিশেষ প্রতিবেদক
কক্সবাজারের পেকুয়ায় চাচার সাথে ঝগড়ার সময় পক্ষ অবলম্বন না করায় বড় ভাই, ভাবী ও ভাতিজীকে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করল ছোট ভাইয়েরা।আহতদেরকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্থাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।আহতদের মধ্যে ভাবীর শারিরীক অবস্থা আশংকাজনক বলে জানা যায় হাসপাতাল সুত্রে।ঘটনাটি ঘটেছে ৬ই জুন শনিবার দুপুর ২টায় উপজেলার টইটং ইউনিয়নের নাপিত খালীর দক্ষিণ পাড়া এলাকায়।আহতেরা হলেন একই এলাকার মৃত আহমদ কবিরের পুত্র শফি আলম (৫০),তার স্ত্রী বুলবুল আকতার (৪৫) ও মাদ্রাসা পড়ুয়া মেয়ে তারজিনা বেগম(১৪)।আহত তারজিনা বেগম বারবাকিয়া ইউনিয়নের মৌলভী বাজার ফারুকিয়া মাদ্রাসার ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী।
আহত শফি আলম জানান আমার ছোট ভাই রমিজ অহেতুকভাবে চাচা গোলাম মোস্তফার সাথে ওয়ারিশ সুত্রে যায়গা পাবে দাবী করে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ করে আসছিল।এরই ধারাবাহিকতায় গত শুক্রবারে এস্কেভেটর নামিয়ে মাটি খনন করছিল রমিজ। সংবাদ পেয়ে চাচা গোলাম মোস্তফা ঐ স্থানে এসে মাটি খননের বাঁধা প্রদান করায় তার সাথে বাক-বিতন্ডায় জড়ায়।বাক-বিতন্ডার সময় আমি তার সাথে যোগ না দেয়ায় ছোট ভাই রমিজ উদ্দিনের নেতৃত্বে জাহেদ,শহিদুল্লাহ,ছোটন,শহিদুল্লাহর পুত্র তওহিদ,জোবাইদা,মনছুরা ও রেনুয়ারা বেগম দেশীয় অস্ত্র দা-কিরিচ,লোহার রড ও লাঠিসহকারে আমার বসতবাড়িতে এসে আমাকে উঠিয়ে নিয়ে গিয়ে তাদের বাড়িতে বেঁধে মারধর করতে থাকে।এসময় আমার স্ত্রী-সন্তানরা আমাকে উদ্ধার করতে গেলে তাদেরকে বেধড়ক পিঠিয়ে রক্তাক্ত জখম করে।পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে আমাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে।অন্যথায় তারা আমাদেরকে জানে মেরে ফেলত।তাদের অমানবিক এ হামলার বিরুদ্ধে আমি আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য থানায় এজাহার দায়ের করেছি।
এব্যপারে পেকুয়া থানার ওসি কামরুল আজম বলেন ঘটনার বিষয়ে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি।অভিযোগের বিষয়ে তদন্তপূর্বক আইনগত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
Visits: 49

ট্যাগ :

নামাজের সময় সূচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫৮
  • ১১:৫৮
  • ১৬:৩২
  • ১৮:৩৫
  • ১৯:৫৭
  • ৫:১৮