সাগরবাণীলকডাউনে কাজ হারিয়ে ডাকাতি - সাগরবাণী লকডাউনে কাজ হারিয়ে ডাকাতি - সাগরবাণী

লকডাউনে কাজ হারিয়ে ডাকাতি

প্রকাশ: ২০২০-০৬-২৩ ১৭:৪২:১২ || আপডেট: ২০২০-০৬-২৩ ১৭:৪২:১২

সাগরবাণী ডেস্ক▪ 

প্রানঘাতী করোনায় কর্ম হারিয়ে পরিবারের মুখে দুমুঠো ভাত তুলে দিতে হিমশিম খাচ্ছিলেন তারা। তাই উপায় না দেখে ডাকাতির পথ বেছে নিতে বাধ্য হয়েছেন।

পাঞ্জাবের লুধিয়ানা অঞ্চলের বাসিন্দা পবিত্র সিং(২৯)। একটি কারখানার সিকিউরিটি গার্ডের কাজ করতেন তিনি। লকডাউন শুরু হতেই কারখানা বন্ধ হয়ে যায়। এর ফলে কাজ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয় পবিত্র সিং কে। তাছাড়া ভাট্টিয়ান গ্রামের বাসিন্দা রূপলাল(৩২), জীনপুর গ্রামের বাসিন্দা মহিন্দ্র সিং(৩৩)- দুজনেই ওই কারখানার কর্মী ছিলেন। কারখানা বন্ধ হয়ে গেলে চাকরি চলে যায় তাদের। আর পেটের দায়ে অবশেষে শুরু করে ডাকাতি।

গতকাল শুক্রবার লুধিয়ানার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন এজেন্সির সদস্যরা মোট ৬ জনের একটি ডাকাত দলকে গ্রেফতার করেছে। গত তিনমাসে তারা বিভিন্ন জায়গায় ডাকাতি করেছে।

পুলিশ কমিশনার রাকেশ আগারওয়াল বলেছেন, গত কয়েকমাসে কাস্টমার সেজে বিভিন্ন অঞ্চলের মদের দোকান এবং পেট্রল পাম্পের কর্মীদের কাছ থেকে টাকাপয়সা ডাকাতি করে ওই গ্যাং। কিছু কিছু ঘটনা সিসিটিভি ক্যামেরায় ধরা পড়েছে। সেগুলো দেখে মূল অপরাধীকে ধরা গেছে। মুখে মাস্ক দিয়ে বাইকে করে ডাকাতি করতো তারা। কিন্তু তাদের কোন বাইকেরই রেজিস্ট্রেশন নম্বর প্লেট ছিল না।

জেরায় জানা যায়, লকডাউনের মধ্যে শহরে মোট ছয়টি ডাকাতির ঘটনা ঘটিয়েছে এই দল। তদন্তকারী দলের এক অফিসার প্রবীণ রানদেব বলেন, অভিযুক্তরা কেউই দাগী আসামী নয়। এদের কারোই অপরাধ জগতের সাথে পূর্বে কোন সম্পর্ক ছিল না। তাদের মধ্যে তিনজন ব্যাংক ঋণ ছিল। কাজ হারানোয় সেই ঋণ শোধ করে পারেননি। হাতে টাকাপয়সা না থাকায় ডাকাত দলে যোগ দেন তারা। ডাকাত দল থেকে একটি পিস্তলও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

করোনার জেরে বেকারত্বের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি। লকডাউনের জেরে আর্থিক সংকটের মুখে পড়েছে বহু সংস্থা। ফলে উৎপাদন বন্ধ করে দিতে বাধ্য হচ্ছেন অনেকেই। এর প্রভাব পড়ছে নিম্ন মধ্যবিত্ত এবং মধ্যবিত্ত সাধারণ মানুষের উপর। কাজ হারিয়ে কোন বিকল্প পথ না পেয়ে অবশেষে অপরাধজগতে পা ফেলছেন তারা।

Visits: 21

ট্যাগ :

নামাজের সময় সূচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫৮
  • ১১:৫৮
  • ১৬:৩২
  • ১৮:৩৫
  • ১৯:৫৭
  • ৫:১৮