সাগরবাণীরোমান্টিক সালমানকে ভোলা যায় না: ববিতা - সাগরবাণী রোমান্টিক সালমানকে ভোলা যায় না: ববিতা - সাগরবাণী

শিরোনাম : UNHCR provides Liquefied Petroleum Gas and training on safe use in Ukhiya ৩৭০০ হতদরিদ্র পরিবারের জীবিকায়নে কাজ করছে ইউনাইটেড পারপাস মনজুর আলমের জমিতে আদালতের স্থিতিবস্থার আদেশ অমান্য করে বেআইনী তৎপরতা চালানোর অভিযোগ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাংচুরের প্রতিবাদে পলিটেকনিক ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল-সমাবেশ দেশে আর্টিমিয়া চাষ সম্প্রসারণ করলে সামুদ্রিক মাছ চাষ অধিক উৎপাদন সম্ভব ২০২১ সালে ডিসেম্বরে কুতুবদিয়ায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হবে- জাহাঙ্গীর কবির নানক বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মহাসচিবের সাথে কক্সবাজার জেলা ইউনিটের কার্যনির্বাহী কমিটির মতবিনিময় সভা রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির ৪দিনব্যাপী প্রাথমিক চিকিৎসা, সন্ধান ও উদ্ধার প্রশিক্ষণ শুরু

রোমান্টিক সালমানকে ভোলা যায় না: ববিতা

প্রকাশ: ২০২০-০৯-০৬ ০৯:৪২:৪৯ || আপডেট: ২০২০-০৯-০৬ ০৯:৪২:৪৯

বিনোদন ডেস্ক

‘স্বপ্নের নায়ক’ নেই ২৪ বছর। ভক্তদের কাঁদিয়ে ১৯৯৬ সালের ৬ সেপ্টেম্বর না ফেরার দেশে পাড়ি জমান সালমান শাহ। ‘স্বপ্নের নায়ক’ ‘স্বপ্নের পৃথিবী’ থেকে বিদায় নিলেও ভক্তদের ‘অন্তরে অন্তরে’ আজো তিনিই আছেন।

মাত্র তিন বছর বড় পর্দায় কাজ করার সুযোগ পেয়েছিলেন সালমান শাহ। এই অল্প সময়েই তিনি দর্শকদের হৃদয় জয় করে একের পর এক উপহার দিয়েছেন সুপারহিট সিনেমা। অভিনয় করেছেন মোট ২৭টি সিনেমায়। তার মধ্যে ৪টি ছবিতে তিনি পেয়েছিলেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন নায়িকা ববিতার সঙ্গে অভিনয়ের সুযোগ।

এগুলো হচ্ছে বাদল খন্দকারের ‘স্বপ্নের পৃথিবী’, দীলিপ সোমের ‘মহামিলন’, শিবলী সাদিকের ‘মায়ের অধিকার’ ও জাকির হোসেন রাজুর ‘জীবন সংসার’। দু’টি ছবিতে সালমানের মায়ের ভূমিকায় এবং দু’টি ছবিতে সালমানের ভাবির ভূমিকায় অভিনয় করেন ববিতা।

সালমান শাহকে হারানোর ২৪ বছরে সন্তানতূল্য অভিনেতাকে স্মরণ করেছেন ববিতা। তার স্মৃতির দেয়ালে সাঁটানো ছবিগুলোতে চোখ বুলিয়ে দেখা গেল অন্য এক নায়ক সালমানকে। যেখানে নারী শিল্পীর প্রতি তার সম্মান মুগ্ধ করে যায়।

ববিতা বলেন, সালমানকে আমি ভীষণভাবে মিস করি। যখন টিভিতে ওর অভিনীত গান-সিনেমা চলে তখন খুব কষ্ট লাগে। ও আমার এতো কাছের আর এত আপন ছিলো, বলার মতো নয়। ওর সঙ্গে অল্প কাজ হলেও মনে হয় আমি ওকে অনেকদিন ধরে চিনেছিলাম। কী আন্তরিকতা! কী সম্মান।

তিনি বলেন, সালমান আমাকে খুব সুন্দর করে ডাকতো আর এতো সুন্দর ভাষায় কথা বলতো সেগুলো আমার কানে খুব বাজতো। যখন আমি ওর মায়ের চরিত্র করতাম তখন সালমান বলতো ‘ইউ আর সো সুইট মাদার’।

‘সালমান আমাকে ফোন ব্যবহার করা শিখিয়েছে। তখন নতুন সিটিসেল নামে বড় বড় সাইজের কিছু ফোন বাজারে আসে। আমি এতো ফাংশন জানতাম না। ও আমাকে একটি কাগজে সব লিখে দিয়েছিলো কীভাবে ফোনটি ব্যবহার করবো। সেই কাগজ আজো রেখে দিয়েছি।’

ববিতা বলেন, ও (সালমান) ঘরের ছেলের মতো ছিলো সবার কাছে। সত্যি কথা বলতো। স্টারডমের বাজে প্রকাশ ছিলো না। সিনিয়রদের অনেক অনেক সম্মান করতো। ও ফোন করে আমার সঙ্গে প্ল্যান করে শুটিং টাইমটা কিছু সময়ের জন্য পিছিয়ে নিয়েছিলো। কিন্তু আমি তার সিনিয়র, সে আমাকে সেটে পাঠিয়ে বসিয়ে রাখেনি।

অভিনেতা সালমান অনেক শক্তিশালী ছিলো। ববিতা সেই প্রসঙ্গে বলেন, সালমান শাহ কিন্তু আসলেই দারুণ একজন শিল্পী ছিলো। ওর সঙ্গে কাজ করতে গেলে খুব সতর্কভাবে শট দিতে হতো। যেমন সিকোয়েন্সে ডায়লগ দেয়া আছে ভাবি দেবরের কনভারসেশন। সেখানে ও এমন এক্সট্রা কিছু মজার ডায়লগ দিতো এবং এমন এক্সপ্রেশন দিতো যা আমার কভার করতে হতো। আমি ভাবতাম ও যখন এই ভঙ্গিটা এভাবে করেছে আমার একটু আলাদা না দিলে জমবে না দৃশ্যটি। তাহলেই বুঝুন কত বড় মাপের একজন শিল্পী সে।

‘সবাই ওকে রোমান্টিক হিরো বলে একটা ক্যাটাগরিতে আটকে রাখতে চায়। এটা ঠিক না। ও দুর্দান্ত অভিনেতা ছিলো। মনেই হতো না ২৪-২৫ বছরের একজন অভিনেতা। কী সাংঘাতিক পরিণত! মানুষ হাতে কলমে শিখেও অনেক কিছু করতে পারে না।’

সালমানকে মনে পড়ে জানিয়ে ববিতা জানান, যখন ছেলেটা হারিয়ে গেলো মানতেই পারছিলাম না। অনেকদিন আমি ওকে ভুলতে পারতাম না। খুব কান্না পেতো। এতো অল্প বয়স, কী দারুণ সম্ভাবনা ছিলো তার। প্রায়ই হুট করে মনে পড়ে যায়। তখন শুটিংয়ের মধ্যে ও যেভাবে কথা বলতো, আমাকে ডাকতো, ওর সেই আওয়াজটা কানে লাগে। এখনো মনে হয় ও বেঁচে আছে, ও কথা বলছে, সব কিছু হচ্ছে।

আমি ওর রোমান্টিক নায়িকা ছিলাম না। কিন্তু ওর রোমান্টিকতা দেখেছি অভিনয়ে। রোমান্টিক সালমানকে ভোলা যায় না। একজন সহশিল্পী সালমান শাহকেও কোনোদিন ভুলবো না।

Visits: 30

ট্যাগ :

নামাজের সময় সূচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৫:২৮
  • ১২:১২
  • ১৫:৫৬
  • ১৭:৩৬
  • ১৮:৫৩
  • ৬:৪৩